world-share-42919দফায় দফায় জ্বালানি তেলের দরপতনের নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে বিশ্বের শেয়ারবাজারে। তেলের দাম ৩০ ডলারের নিচে নেমে আসায় দরপতনের মুখে পড়েছে যুক্তরাষ্ট্র এবং ব্রিটেনের বৃহত্তম জ্বালানি কোম্পানি এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সূচক।

২০১৪ সালে মাঝামাঝি থেকে জ্বালানি তেলের দরপতন শুরু। যার নেতিবাচক প্রভাব পড়ে পুরো বিশ্বের শেয়ারবাজারে। চলতি বছরের শুরু থেকেই চীনা অর্থনীতির ধীরগতি এবং জ্বালানির দরপতনে অস্থির শেয়ারবাজার।

বৃহস্পতিবার কিছুটা স্থিতিশীল হলেও জ্বালানির দাম ৩০ ডলারের নিচে নামার খবরে ফের অস্থিরতা তৈরি হয় ওয়ালস্ট্রিটের শেয়ারবাজারে। ডও জোনস, এস এন্ড পি, নাসডাক, এফটিএসই’সহ বিভিন্ন সূচক কমে যায় সর্বনিম্ন ২ থেকে সর্বোচ্চ সাড়ে ৩শ’ পয়েন্ট পর্যন্ত।

একই অবস্থার সম্মুখীন হয় ব্রিটেন, জার্মানি, চীনসহ সমগ্র ইউরোপ এবং এশিয়ার শেয়ারবাজার। সবচেয়ে বেশি সূচকের দরপতন দেখা যায় জ্বালানি কোম্পানিগুলোর শেয়ারে। কমে প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর সূচকও।

এদিকে, ইরানের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হলে তেলের সরবরাহ কমার পরিবর্তে উল্টো বাড়বে। একে বিশ্ব পুঁজি বাজারের জন্য ভয়াবহ হুমকি হিসেবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। বিশ্বের শেয়ারবাজারে সূচকের দরপতন ঠেকাতে জ্বালানি তেলের দাম নিয়ন্ত্রণে আনার বিকল্প নেই বলেই মনে করছেন তারা।

LEAVE A REPLY