amu-17
ঢাকা, ০৯ মাঘ (২২ জানুয়ারি)ঃ

বাংলাদেশ থেকে মধু আমদানি করবে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভূক্ত দেশ স্লোভেনিয়া। এ লক্ষ্যে স্লোভেনিয়ার ঐতিহ্যবাহী মধু উৎপাদন ও বিপণনকারী প্রতিষ্ঠান মেডেক্স (গবফবী) ইতোমধ্যে শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প কর্পোরেশনের (বিসিক) সাথে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে। এর আওতায় প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশি মৌচাষী ও মধু বিপণনকারীদের প্রশিক্ষণ, প্রযুক্তি ও কারিগারি সহায়তাসহ অন্যান্য সহযোগিতা করবে।

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমুর সাথে বৈঠককালে মেডেক্স (Medex) এর প্রধান নির্বাহি কর্মকর্তা অ্যালেসা কুন্ডুস   বৈঠককালে আজ এ কথা জানান। শিল্প মন্ত্রণালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে শিল্প মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ ফরহাদ উদ্দিন, বিসিক চেয়ারম্যান আহমদ হোসেন খান, মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম প্রধান মোঃ লুৎফর রহমান তরফদার, বিসিকের মৌচাষ প্রকল্পের পরিচালক খোন্দকার আমিনুজ্জামান, স্লোভেনিয়া বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এর প্রেসিডেন্ট অ্যালেস গ্লাভান   স্লোভেনিয়ার প্রখ্যাত মৌচাষ বিশেষজ্ঞ ফ্রেন্স সিবিক  উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে মিজ অ্যালেসা কুন্ডুস   বলেন, বাংলাদেশে মৌচাষের চমৎকার পরিবেশ বিরাজ করছে। মৌচাষ করে বাংলাদেশের চাষিরা মধু উৎপাদনের পাশাপাশি ফসলের উৎপাদনশীলতা ক্ষেত্র বিশেষে শতকরা ১০ ভাগ থেকে ২০ ভাগ বাড়াতে পারে। তিনি আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা ও রোগ-বালাই প্রতিরোধে মধুর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার কথা তুলে ধরেন।

মিজ অ্যালেসা কুন্ডুস আরো বলেন, স্লোভেনিয়ায় প্রতিবছর ৩০ হাজার মেট্রিক টন চাহিদা রয়েছে। এর বিপরীতে স্থানীয়ভাবে প্রতিবছর মাত্র ২ হাজার মেট্রিক টন মধু উৎপাদিত হয়। অবশিষ্ট চাহিদা মেটাতে স্লোভেনিয়া বাংলাদেশ থেকে মধু আমদানি করতে আগ্রহী। এ লক্ষ্যে মেডেক্স   খুব শীঘ্রই বিসিকের সাথে যৌথভাবে গুণগত মানের মধু উৎপাদনের কার্যক্রম শুরু করবে বলে তিনি জানান।

শিল্পমন্ত্রী বাংলাদেশ থেকে স্লোভেনিয়ার মধু আমদানির প্রস্তাবকে স্বাগত জানান। তিনি বলেন, এর মাধ্যমে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশি রপ্তানি পণ্য বৈচিত্রকরণের সুযোগ সৃষ্টি হবে। তিনি স্লোভেনিয়ার উদ্যোক্তাদের সাথে যৌথভাবে গুণগতমানের মধু উৎপাদনে বাংলাদেশ সরকারের সব ধরনের সহায়তার আশ্বাস দেন। স্লোভেনিয়ার আধুনিক প্রযুক্তি বাংলাদেশে স্থানান্তরিত হলে বছরে মধুর উৎপাদন কয়েক গুণ বেড়ে যাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, বর্তমানে বাংলাদেশে বছরে ৪ হাজার মেট্রিক টন মধু উৎপাদিত হয়। উন্নত প্রযুক্তির প্রয়োগ ও মৌচাষির সংখ্যার বাড়ালে বছরে ১ লাখ মেট্রিক টন মধু উৎপাদন সম্ভব বলে মৌচাষ বিশেষজ্ঞরা মনে করেন।

LEAVE A REPLY