ঢাকা, ৩ মাঘ (১৬ জানুয়ারি):
জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের কোনো সম্পত্তি অবৈধভাবে করো দখলে রাখতে বা দখল করতে দেওয়া হবে না। এ সংস্থার জমি বা সম্পত্তি রাষ্ট্রীয় সম্পদ। সকল প্রকার প্রভাব-প্রতিপত্তি উপেক্ষা করে রাষ্ট্রীয় এ সম্পদ রক্ষা করা হবে। এ জন্য সকলকে তৎপর থাকতে হবে।
গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম আজ জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ (এনএইচএ) -এর সম্মেলন কক্ষে এনএইচএ’র কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন।
গণপূর্ত মন্ত্রী বলেন, সাধারণত বিত্তবৈভবের মালিক ও প্রভাবশালীরা সরকারি সম্পত্তি অবৈধভাবে দখল করে থাকে। এ জন্য প্রয়োজনে তারা আদালতের আশ্রয়সহ নানা কৌশল গ্রহণ করে। এসব অবৈধ দখলদাররা আদালতের আশ্রয় নিলে সরকারের পক্ষ থেকে অভিজ্ঞ, দক্ষ ও বিজ্ঞ আইনজীবীর সহায়তা নেওয়া হবে। বিদ্যমান মামলা নিষ্পত্তির জন্যও এসব বিজ্ঞ আইনজীবীর সহায়তা নিয়ে দ্রুত মামলার নিষ্পত্তি করা হবে। কথিত প্রভাবশালীদের অবৈধ তৎপরতা বন্ধ করতে হলে কর্মক্ষেত্রে সততা, স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা ও দুর্নীতিমুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। একই সাথে জনগণের সেবা নিশ্চিত করতে কাজের গতিশীলতা আরো বাড়াতে হবে।
মন্ত্রী বলেন, সাংবিধানিকভাইে আবাসন মানুষের মৌলিক অধিকার। এ অধিকার নিশ্চিত করার দায়িত্ব গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় এবং তার অধীনস্থ সংস্থাগুলোর। তাই মন্ত্রণালয় বা সংস্থাগুলোকে জনবান্ধব পরিবেশ গড়ে তুলতে হবে। এখানে এসে জনগণ যাতে কোন হয়রানির শিকার না হয়, সে দিকে দৃষ্টি রাখতে হবে। ভূমি বা ফ্ল্যাটের নামজারিতে যাতে কেউ কষ্ট না পায়, বা অহেতুক কালক্ষেপণের শিকার না হয় সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের সজাগ থাকতে হবে।
অনুষ্ঠানে গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব মোঃ শহীদ উল্লা খন্দকার ও জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোঃ রাশিদুল ইসলাম বক্তৃতা করেন। মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. মোঃ আফজাল হোসেন, জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের সদস্য ফজলুল কবীরসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।